আর্কাইভ কনভাটার ঢাকা, বুধবার, জুন ১৯, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Logo

Ministry of Agriculture

তীব্র শীতে ফসল রক্ষায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ

Bijoy Bangla

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৭ জানুয়ারী, ২০২৪, ০১:৫৮ পিএম

তীব্র শীতে ফসল রক্ষায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের পরামর্শ

তীব্র শীতে কৃষি ফসলের ক্ষতির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ অবস্থায় কৃষি ফসল রক্ষায় পরামর্শ দিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। বুধবার (১৭ জানুয়ারি) কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আওতাধীন কৃষি আবহাওয়া তথ্য পদ্ধতি উন্নতকরণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ড. মো. শাহ কামাল খান-এর দেওয়া কৃষি পূর্বাভাসে এ তথ্য জানা গেছে। 

কৃষি পূর্বাভাসে জানানো হয়, সারাদেশে তীব্র শীত বিরাজমান। এর পাশাপাশি আগামী তিনদিনের মধ্যে রাজশাহী, ঢাকা, খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগে হালকা বৃষ্টি বা গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর (বিএমডি) জানিয়েছে। বিএমডির তথ্য অনুসারে মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে এবং এটি কোথাও কোথাও দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। 

ফসল রক্ষায় যেসব জরুরি পরামর্শ দিয়েছে সংস্থাটি

১. কুয়াশা ও শীতের এ অবস্থায় বোরো ধানের বীজতলায় ৩-৫ সেন্টিমিটার পানি ধরে রাখতে হবে।

২. ঠান্ডার প্রকোপ থেকে রক্ষা এবং চারার স্বাভাবিক বৃদ্ধির জন্য বীজতলা রাতে স্বচ্ছ পলিথিন দিয়ে ঢেকে দিন। বীজতলা থেকে পানি সকালে বের করে দিয়ে আবার নতুন পানি দিন। প্রতিদিন সকালে চারার ওপর জমা হওয়া শিশির ঝরিয়ে দিন আবহাওয়ার বর্তমান পরিস্থিতিতে আলুর নাবিধসা রোগের আক্রমণ হতে পারে। প্রতিরোধের জন্য অনুমোদিত মাত্রায় ম্যানকোজেব গোত্রের ছত্রাকনাশক ৭-১০ দিন পর পর স্প্রে করুন।

৩. সরিষায় অলটারনারিয়া ব্লাইট রোগ দেখা দিতে পারে। রোগ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অনুমোদিত মাত্রায় ইপ্রোডিয়ন গোত্রের ছত্রাকনাশক ১০ থেকে ১২ দিন পর পর ৩ থেকে ৪ বার স্প্রে করুন। 

৪. ঠান্ডাজনিত ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষার জন্য ফল গাছে নিয়মিত হালকা সেচ দিন। কচি ফল গাছ ঠান্ডা হাওয়া থেকে রক্ষার জন্য খড় বা পলিথিন শিট দিয়ে ঢেকে দিন।

৫. গম ক্ষেতে সেচ দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। জমিতে যেন পানি জমে না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

৬. গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগির ঘর চট বা কালো কাপড় দিয়ে ঘিরে দিন এবং হাই ভোল্টেজ বাল্ব জ্বালিয়ে রাখুন।

৭. নিম্ন তাপমাত্রার ক্ষতিকর প্রভাব থেকে রক্ষা পেতে পুকুরে যেন যথেষ্ট পরিমাণে পানি থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়াজনিত রোগ থেকে মাছ রক্ষার জন্য পুকুরে চুন প্রয়োগ করুন (২৫০-৫০০ গ্রাম/শতাংশ)।

google.com, pub-6631631227104834, DIRECT, f08c47fec0942fa0