আর্কাইভ কনভাটার ঢাকা, মঙ্গলবার, জুন ২১০, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Logo

বাংলাদেশে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: ড. হাছান মাহমুদ

Bijoy Bangla

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর, ২০২৩, ০৪:৫৮ এএম

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, শেখ হাসিনা থাকলে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে, আজকের বাংলাদেশে জননেত্রী শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই। যে যত কথাই বলুক রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে যিনি ‘না’ বলতে পারেন এবং বড় রাষ্ট্রের থাবাকে যিনি উপেক্ষা করতে পারেন, তিনি হচ্ছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে শেখ হাসিনার মতো সাহস রাখে বাংলাদেশে আর কোনো নেতা আছে কিনা- এমন প্রশ্ন রেখে তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বব্যাংককে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে নিজের টাকায় পদ্মা সেতু করতে পেরেছেন। বিশ্বব্যাংকও ভাবেনি, এটি বাংলাদেশ করতে পারবে, বঙ্গবন্ধু কন্যা সেটি করে দেখিয়েছেন। এরপর বিশ্ব ব্যাংক আবার টাকা দিতে চেয়েছিল, তিনি বলেছেন পদ্মা সেতুতে আমার টাকার দরকার নেই, তোমরা টাকা দিতে চাও অন্য প্রকল্পে দাও। সেজন্য আবার রেলব্রিজ করা হচ্ছে, ওখানে অবশ্য, বিশ্ব ব্যাংক স্বপ্রণোদিত হয়ে টাকা দিচ্ছে। মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চট্টগ্রামের হোটেল আগ্রাবাদের ইছামতী হলে ইনল্যান্ড ভেসেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব চিটাগাংয়ের উদ্যোগে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন নৌ-বন্দর ও গন্তব্যে পণ্য পরিবহন পরিচালনা কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী পুরো দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য নানা পরিকল্পনা নিয়েছেন। আপনারা জানেন, চট্টগ্রামে বে-টার্মিনাল নির্মাণ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বে-টার্মিনালে স্বাভাবিক সময়ে ১২ মিটার ড্রাফটের (জাহাজের পানির নিচের অংশ) জাহাজ থাকবে এবং সেটিকে একটু ড্রেসিং করে জোয়ারের সময় ১৪ মিটার ড্রাফটের জাহাজও ঢুকতে পারবে। পাশাপাশি মাতারবাড়ীতে ১৮ মিটার ড্রাফটের জাহাজ ভিড়তে পারার মতো করে বন্দর তৈরি করা হয়েছে। এই দুই জায়গা থেকে ছোট ছোট কার্গো শিপে করে পায়রা, মোংলা এবং ঢাকা শহরের আশপাশে যে ইন্ডাস্ট্রিগুলো হয়েছে সেখানে পণ্য পরিবহন করা হবে। এখন যেভাবে চট্টগ্রাম বন্দর থেকে কিছুটা করা হয়। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী এই মহাপরিকল্পনা নিয়েছেন শুধু চট্টগ্রাম কিংবা বাংলাদেশকে কেন্দ্র করে নয়, পুরো অঞ্চলের কথা মাথায় রেখে বে-টার্মিনাল ও মাতারবাড়ীতে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণ করা হয়েছে। ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে, তিনি জানিয়েছেন, আসাম উদগ্রীব হয়ে বসে আছেন কখন তারা চট্টগ্রাম বন্দর ব্যবহার করতে পারবে। আমাদের সরকারের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে এবং একই সঙ্গে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হয়েছে। রামগড় দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে, আখাউড়া দিয়ে রেলপথ নির্মাণ করা হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে আগরতলার দূরত্ব মাত্র ৮০ কিলোমিটার। তথ্যমন্ত্রী বলেন, সব কিছু মাথায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ মহাপরিকল্পনা নিয়েছেন। চট্টগ্রামকে ঘিরে অনেক পরিকল্পনা হয়েছে, বিশেষ করে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর যখন পুরো উদ্যমে চালু হবে, তখন সেখানে কমপক্ষে ১৫ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান হবে। বেশ কয়েকটা ইন্ডাস্ট্রি ইতিমধ্যে প্রোডাকশনে গেছে। আগামী বছরের মার্চ নাগাদ সেখানে দেশের প্রথম ইলেকট্রিক গাড়ি নির্মিত হবে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক ফোর লেনেও হচ্ছে না, এখন সিক্স লেনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রাস্তার পাশাপাশি আমাদের ওয়াটার ট্রান্সপোর্টেশন বাড়াতে হবে এবং ওয়াটার ট্রান্সপোর্টেশন ব্যয়সাশ্রয়ী। এটি পরিবেশবান্ধব, একই সঙ্গে এটি আমাদের নদীর নাব্যও ঠিক রাখে। ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম হয়ে কক্সবাজার পর্যন্ত রেল চালু হয়েছে। এসব উদ্যোগ এবং বাস্তবায়ন মানুষের স্বপ্নকেও হার মানিয়েছে। ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান বলেন, গত ১৫ বছরে ব্যবসা-বাণিজ্যে অনেক সমৃদ্ধি এসেছে। ব্যবসায়ী সমাজকে অনুরোধ জানাবো, ব্যবসা এমন একটা জিনিস সেটি শুধু নিজের জন্য নয়, সমাজের জন্যও অনেক কিছু করা যায়। মাথায় রাখতে হবে এই দেশটা আমাদের সবার। সুতরাং নিজের কল্যাণের পাশাপাশি জনকল্যাণের কথাটাও মাথায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, ভারতের একটি পত্রিকায় খবর আসল, আর সেটির সূত্র ধরে বাংলাদেশের একটি পত্রিকা খবর ছাপালো মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করছে ভারত, এক ঘণ্টার মধ্যে পেঁয়াজের দাম বেড়ে গেল এবং গ্রাম পর্যায়ে খুচরা বিক্রেতাও বাড়িয়ে দিল। এটাতো অসাধু ব্যবসায়ী ছাড়া অন্য কিছু নয়। সুতরাং এই ধরনের কাজগুলো যাতে কেউ না করে সেক্ষেত্রেও অ্যাসোসিয়েশনের একটি ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। তিনি বলেন, দেশের এই উন্নয়ন অগ্রগতি অব্যাহত রাখার জন্য আপনারা আগামী নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে যাবেন, সবাইকে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিতে অনুরোধ জানাবেন। দেশে নির্বাচন নিয়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা তৈরি হয়েছে। নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালী করবেন। ইনল্যান্ড ভেসেল ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন অব চিটাগাংয়ের সভাপতি শফিক আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য মো. সেলিম, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। অতিথি ছিলেন ওয়াটার ট্রান্সপোর্ট কার্গো এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি বেলায়েত হোসেন, সাধারণ সম্পাদক অমল চন্দ্র দাস। বক্তব্য দেন আইভোয়াকের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. আজিজুর রহমান, নরোত্তম সাহা পলাশ, কাজী মনিরুল ইসলাম, খালেদ মাহমুদ প্রমুখ।

google.com, pub-6631631227104834, DIRECT, f08c47fec0942fa0