আর্কাইভ কনভাটার ঢাকা, মঙ্গলবার, জুন ২১০, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Logo

36 Love case hearing

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে আদালতে ৩৬ ভালোবাসা মামলার শুনানি

Bijoy Bangla

নওগাঁ প্রতিনিধি:

প্রকাশিত: ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪, ০৪:০৬ পিএম

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে আদালতে ৩৬ ভালোবাসা মামলার শুনানি
বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে আদালতে ৩৬ ভালোবাসা মামলার শুনানি

 বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে নওগাঁ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এ ব্যতিক্রমী এক উদ্যোগ দেখা গিয়েছে।  

বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) এ আদালতে কেবল প্রেম-ভালোবাসা সংক্রান্ত মামলাগুলোরই শুনানি হতে দেখা গেছে।

 আদালতের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মো. মেহেদী হাসান তালুকদার এমন উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এই আদালতে ৩৬টি মামলার শুনানি হবে। আর এসব মামলার সবগুলোই প্রেম-ভালোবাসাঘটিত। এদিন শুনানির জন্য আদালতে আসা যুগলদের 'লাভ ক্যান্ডি' দিয়ে শুভেচ্ছা জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মকবুল হোসেন।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, আজ এ আদালতে যেসব মামলার শুনানি হবে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি মামলা হলো- কয়েক বছর আগে নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলার এক কিশোরী (১৭) সনাতন ধর্মের এক যুবকের (২১) সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। সেই সময় ওই কিশোরীর বয়স ছিল ১৪ বছর। সে তখন স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণিতে পড়ত। অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই মেয়েটির পরিবার এই সম্পর্কের কথা জানতে পারে। এ সম্পর্কে পরিবারের মত না থাকায় মেয়ে ও ছেলে দুজনই একসঙ্গে আত্মহত্যার সিদ্ধান্তও নিয়েছিল। পরে ২০২১ সালের ২০ জুন তারা পালিয়ে বিয়ে করেন। এ ঘটনায় মেয়েটির বাবার করা অপহরণ মামলায় ছেলেটিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জেলার সাপাহার উপজেলার ১৬ বছর বয়সী কিশোরী আঁখি (ছদ্মনাম) গত বছর ৯ জানুয়ারি প্রেমিক পরশের (ছদ্মনাম) কর্মস্থল ময়মনসিংহে পালিয়ে যায়। এরপর এফিডেভিটের মাধ্যমে বিয়ের ঘোষণা দিয়ে ময়মনসিংহেই একটি বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতে শুরু করে। ছেলেটি রাজমিস্ত্রির কাজ করত। এরপর ২২ জানুয়ারি বাড়ি ফিরে আসে আঁখি। ততদিনে তার বাবা পরশের বিরুদ্ধে অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলায় পরশকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর আদালত ওই মামলায় পরশকে কারাগারে পাঠিয়ে আঁখিকে তার পরিবারের জিম্মায় দেন।

আদালতের বিচারক মেহেদী হাসান তালুকদার বেলা ১১টার দিকে এজলাসে বসে বিচারিক কার্যক্রম শুরু করেন। তিনি শুনানিতে উপস্থিত যুগলদের প্রেমে না জড়িয়ে নিজেদের ধর্মীয় অনুশাসন ও পিতা-মাতার আদেশ মেনে চলা, পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া, আত্মনির্ভরশীল হওয়া এবং শিক্ষিত হয়ে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মকবুল হোসেন বলেন, 'আজকে ভিন্ন মাত্রায় আদালত বসেছে। ট্রাইব্যুনালে অসম প্রেমে জড়ানো ও তা থেকে অভিভাবকদের অপহরণ এবং বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের মামলাগুলো আজ শুনানির জন্য রাখা হয়। বিচারক সংশ্লিষ্টদের পড়াশুনার পাশাপাশি ধর্মীয় মূল্যবোধে ও গুরুজনদের আদেশ-নিষেধ মেনে চলার উপদেশ দেন। 


অচ / বি 

google.com, pub-6631631227104834, DIRECT, f08c47fec0942fa0