আর্কাইভ কনভাটার ঢাকা, শনিবার, জুন ১১০, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Logo

logo
উপজেলা নির্বাচন

বিএনপির পাঁচ শতাধিক স্থানীয় পর্যায়ের প্রার্থী উপজেলায় ছড়াছড়ি

Upazila election


অনলাইন ডেস্ক প্রকাশিত:  ১৪ জুন, ২০২৪, ০৯:৫৬ এএম

বিএনপির পাঁচ শতাধিক স্থানীয় পর্যায়ের প্রার্থী উপজেলায় ছড়াছড়ি
___প্রতীকী ছবি

উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করবে না বলে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়েছে। বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে , উপজেলা নির্বাচনে যদি বিএনপির কেউ অংশগ্রহণ করে তাহলে তাকে আজীবন বহিষ্কার করা হবে। কিন্তু বিএনপি নেতাদের এই কথাকে উপেক্ষা করে দলটির অন্তত পাঁচ শতাধিক স্থানীয় পর্যায়ের নেতা এখন উপজেলা নির্বাচনের জন্য মাঠে নেমেছে।

উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপির প্রার্থীরা এখন এলাকায় সরগরম করছেন। তারা ইফতার পার্টির আয়োজন করেছেন, জনসংযোগ শুরু করেছেন এবং নির্বাচনের জন্য আনুসঙ্গিক প্রস্তুতিও গ্রহণ করেছেন।

বিএনপির স্থানীয় পর্যায়ে নেতারা বলছেন, দলের কেন্দ্রীয় নেতারা যদি তাদেরকে বহিষ্কার করে কিছু করার নেই। দরকার হলে তারা দল করবেন না। কিন্তু উপজেলা নির্বাচনে তাদেরকে অংশগ্রহণ করতেই হবে।

উপজেলা নির্বাচনে কেন বিএনপির স্থানীয় পর্যায়ে নেতারা অংশগ্রহণ করতে চান এর কারণ হিসেবে তারা বলেছেন যে, নির্বাচন প্রতিরোধের ডাক দিয়ে নেতারা ঘুমিয়ে ছিলেন, তারা নির্বাচন প্রতিরোধ করতে পারেননি। জেল, জুলুম, মামলা, হামলা সব হচ্ছে আমাদের বিরুদ্ধে। এখন যদি আমরা নির্বাচনও না করি, তাহলে এলাকায় আমাদের কোন অস্তিত্ব থাকবে না। আমরা এলাকা থেকে নিঃশেষিত হয়ে যাব। জনগণ চায় যে তাদের সঙ্গে আমরা সম্পর্ক রাখি। আন্দোলনও করা হচ্ছে না, অন্যদিকে যদি নির্বাচনও না করা হয় তাহলে পরে জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক থাকবে কিভাবে। কর্মীরা কিভাবে কাজ করবে এবং কর্মীদের মনোবল কিভাবে রক্ষা করা যাবে? এই প্রশ্নটি করছেন স্থানীয় পর্যায়ের নেতারা।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা যদিও বলেছেন যে, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করলে তাদেরকে বহিষ্কার করা হবে। কিন্তু এখন উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের জোয়ার দেখে বিএনপির মধ্যেও নানারকম মেরুকরণ হচ্ছে। বিএনপি নেতারা মনে করছেন, এটির ফলে স্থানীয় পর্যায়ে বিএনপি খালি হয়ে যাবে। বিএনপির কোনো জনপ্রিয় নেতাই নির্বাচন থেকে দূরে থাকবেন না। শুধুমাত্র যারা জনপ্রিয়হীন পদলেহী এবং বিভিন্ন রকমের উপঢৌকন দিয়ে দলের নেতৃত্ব পেয়েছেন, সাধারণ মানুষের কাছে যাদের কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই, তারাই নির্বাচন থেকে দূরে থাকতে পারেন।

আর যাদের জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ততা আছে, জনপ্রিয়তা আছে তারা নির্বাচন থেকে দূরে থাকবে না। কারণ দীর্ঘ ১৭ বছরের বেশি সময় ধরে বিএনপি ক্ষমতার বাইরে। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকার কারণে দলের অবস্থা যেমন শোচনীয় হয়েছে, তেমনি বেড়েছে জনবিচ্ছিন্নতা। আর এই কারণেই জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক রাখার জন্য নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই বলে বিএনপির মাঠ পর্যায়ের নেতারা মনে করছেন। তাছাড়া তারা বলছেন যে, জনগণ আওয়ামী লীগের বিকল্প প্রার্থী চায়। এবার নির্বাচনে যেহেতু আওয়ামী লীগ দলীয় প্রতীক নিয়ে অংশগ্রহণ করছে না, সে কারণে এই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা এবং জয়লাভ করা অনেক সহজ।

বিএনপির স্থানীয় নেতারা কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের কাছেও বলছেন যে, নির্বাচনের ব্যাপারে গোঁয়ার্তুমি থেকে যেন সরে আসে। রাজনীতিতে কোনো গোঁয়ার্তুমির জায়গা নেই। গোঁয়ার্তুমির পরিণতি হবে বিএনপির জন্য ধ্বংস। এমনিতেই বিএনপি প্রায় বিলীন একটি রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে। সামনের দিনগুলোতে যদি এরকম ভুল রাজনীতি আঁকড়ে ধরে থাকে তাহলে বিএনপি আরও নিঃশেষিত হবে বলে তারা মনে করছেন। আর একারণেই উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির বাঁধভাঙ্গা জোয়ার ঠেকাতে শেষ পর্যন্ত দলের কেন্দ্রীয় নেতারা হয়তো নীরবতার কৌশলই অবলম্বন করবেন।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

google.com, pub-6631631227104834, DIRECT, f08c47fec0942fa0